২০% শেয়ারদর কমেছে ওরিয়ন ইনফিউশনের

২০% শেয়ারদর কমেছে ওরিয়ন ইনফিউশনের

নিউজ ডেস্কঃ

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসে শেয়ারদর কমেছে ১৩৩টি কোম্পানির। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি কমেছে ওরিয়ন ইনফিউশন লিমিটেডের। আলোচ্য সপ্তাহে কোম্পানিটির শেয়ারদর কমেছে প্রায় ২০ শতাংশ। স্টক এক্সচেঞ্জ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

তথ্য অনুসারে, গত সপ্তাহের শুরুতে ওরিয়ন ইনফিউশনের শেয়ারদর ছিল ৫২৭ টাকা ৪০ পয়সা সপ্তাহ শেষে যা কমে দাঁড়িয়েছে ৪২২ টাকা ৪০ পয়সায়। সে হিসাবে সপ্তাহের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ারদর কমেছে ১০৫ টাকা বা ১৯ দমমিক ৯১ শতাংশ। সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসে কোম্পানিটির ১৫ লাখ ১২ হাজার ৭১৯টি শেয়ার হাতবদল হয়েছে। যার আর্থিক মূল্য ৭১ কোটি ৯১ লাখ ৯১ হাজার টাকা, যা এক্সচেঞ্জটির মোট লেনদেনের ৬ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

সর্বশেষ ৩০ জুন সমাপ্ত ২০২১-২২ হিসাব বছরে শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ২০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে ওরিয়ন ইনফিউশনের পরিচালনা পর্ষদ। আলোচ্য হিসাব বছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ১০ পয়সা, যা এর আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ৩৭ পয়সায়। এ বছরের ৩০ জুন শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ১৪ টাকা ২২ পয়সায়। আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ১৩ টাকা ১০ পয়সায়।

এর আগের ৩০ জুন সমাপ্ত ২০২০-২১ হিসাব বছরে ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে ওরিয়ন ইনফিউশন। সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৩৭ পয়সা। আগের হিসাব বছরে যা ছিল ১ টাকা ৪৬ পয়সা। ৩০ জুন ২০২১ শেষে কোম্পানিটির সমন্বিত এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ১০ পয়সা। আগের হিসাব বছরের একই সময় শেষে যা ছিল ১২ টাকা ৬৬ পয়সা।

৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৯-২০ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল ওরিয়ন ইনফিউশন। ২০১৮-১৯ হিসাব বছরের জন্য ১৪ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ পেয়েছিলেন কোম্পানিটির শেয়ারহোল্ডাররা। এর আগের তিন হিসাব বছরেও একই হারে নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি। এছাড়া ২০১৪-১৫ হিসাব বছরের জন্য ১৩ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয় কোম্পানিটি।

১৯৯৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ওরিয়ন ইনফিউশনের অনুমোদিত মূলধন ১০০ কোটি টাকা। পরিশোধিত মূলধন ২০ কোটি ৩৬ লাখ টাকা।

সর্বশেষ অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, চলতি ২০২২-২৩ হিসাব বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই সেপ্টেম্বর) ওরিয়ন ইনফিউশনের ইপিএস হয়েছে ৬৩ পয়সা। এর আগের হিসাব বছরের একই সময়ে যা ছিল ৭২ পয়সা। এ বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর শেষে কোম্পানিটির এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ১৪ টাকা ৮০ পয়সায়।

পোষ্টটি প্রয়োজনীয় মনে হলে শেয়ার করতে পারেন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!