মরুভূমিতে ছক্কা ঝড় তুলেও স্মিথের কান্না থামাতে পারলনা বাটলার!

মরুভূমিতে ছক্কা ঝড় তুলেও স্মিথের কান্না থামাতে পারলনা বাটলার!

স্পোর্টস ডেস্ক:

কোনও প্রতিদ্বন্দ্বিতাই গড়তে পারলো না রাজস্থান রয়্যালস। জসপ্রিত বুমরার গতিঝড়ে মুখ থুবড়ে পড়লো স্টিভেন স্মিথরা। ব্যাট হাতে লড়াই যা করেছেন জস বাটলার। কিন্তু বাকি সতীর্থরা অসহায় আত্মসমর্পণ করায় সহজ জয় পেয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। মঙ্গলবার রাতে বুমরার পেস আগুনের আগে সূর্যকুমার যাদবের দুর্দান্ত হাফসেঞ্চুরিতে রোহিত শর্মারা পেয়েছে ৫৭ রানের জয়।

আইপিএলে আবুধাবির ম্যাচে সূর্যকুমারের হার না মানা ৭৯ রানে ভর দিয়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে মুম্বাই স্কোরে জমা করে ৪ উইকেটে ১৯৩ রান। কঠিন লক্ষ্যটা বুমরার বোলিংয়ের সামনে আরও কঠিন হয়ে ওঠে। মুম্বাই পেসার ৪ ওভারে মাত্র ২০ রান দিয়ে ৪ উইকেট তুলে নিলে ১৮.১ ওভারে রাজস্থান অলআউট হয়ে যায় ১৩৬ রানে। এই জয়ে ৫ খেলায় ৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে উঠে গেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। সমান ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালসের পয়েন্টও সমান, তবে রানরেটে এগিয়ে রোহিতরা।

১৯৪ রানের লক্ষ্যে রাজস্থান ১২ রানে হারায় ৩ উইকেট। ওপেনার যশস্বী জয়সওয়াল (০) শুরুতেই প্যাভিলিয়নে ফেরার পর ব্যর্থতার মিছিলে যোগ দেন অধিনায়ক স্মিথ। ওয়ান ডাউনে নেমে অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান করেন ৬ রান। সঞ্জু স্যামসনও তো রানের খাতাই খুলতে পারেননি!

কঠিন ওই অবস্থায় রাজস্থানকে আশা দেখিয়েছিলেন বাটলার। ওপেনিংয় নেমে ইংলিশ উইকেটকিপার ৪৪ বলে ৪ বাউন্ডারি ও ৫ ছক্কায় খেলেন ৭০ রানের ঝড়ো ইনিংস্। কিন্তু ওই ইনিংসটাও যথেষ্ট হয়নি। শেষ দিকে জোফরা আর্চারের ১১ বলে ৩ চার ও এক ছক্কায় খেলা ২৪ রানের ইনিংসটা হারের ব্যবধান কমিয়েছে কিছুটা। বুমরার সঙ্গে বোলিংয়ে আলো ছড়িয়েছেন জেমস প্যাটিনসন (২/১৯) ও ট্রেন্ট বোল্ট (২/২৬)। একটি করে উইকেট পেয়েছেন রাহুল চাহার ও কিয়েরন পোলার্ড।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা মুম্বাই দারুণ এক ইনিংস পেয়েছে ম্যাচসেরার পুরস্কার জেতা সূর্যকুমারের কাছ থেকে। গত কয়েক ম্যাচে নিজের সঙ্গে লড়াই করা এই ব্যাটসম্যান খেলেন এবারের আসরে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস। হাফসেঞ্চুরি পূরণ করে তিনি অপরাজিত থাকেন ৭৯ রানে। ওয়ান ডাউনে নেমে ৪৭ বলের ইনিংসটি সাজিয়েছেন ১১ চার ও ২ ছক্কায়।

তার ইনিংসটির আগে মুম্বাইকে দারুণ শুরু এনে দেন দুই ওপেনার রোহিত শর্মা ও কুইন্টন ডি কক। উদ্বোধনী জুটিতে তারা ৪.৫ ওভারে যোগ করেন ৪৯ রান। ডি কক ১৫ বলে ২৩ রান করে ফেরেন সাজঘরে। রোহিত বড় স্কোরের আশা জাগালেও ২৩ বলে ২ চার ও ৩ ছক্কায় ৩৫ রানের ইনিংস খেলে থামতে হয় তাকে।

মুম্বাই অধিনায়ককে বিদায় করার পরের বলেই ইশান কিশানকে আউট করে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগিয়েছিলেন শ্রেয়াস গোপাল। ওই ধাক্কা কাটিয়ে ক্রুনাল পান্ডিয়াকে (১৭ বলে ১২) সঙ্গে নিয়ে দলের রান বাড়িয়ে নেন সূর্যকুমার। এরপর হার্দিক পান্ডিয়া ১৯ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় হার না মানা ৩০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেললে ১৯৩ রানে শেষ হয় মুম্বাইয়ের ইনিংস। রাজস্থানের সবচেয়ে সফল বোলার গোপাল। এই স্পিনার ৪ ওভারে মাত্র ২৮ রান দিয়ে পেয়েছেন ২ উইকেট। আর একটি করে উইকেট নিয়েছেন জোফরা আর্চার ও অভিষিক্ত কার্তিক ত্যাগী।

 

পোষ্টটি প্রয়োজনীয় মনে হলে শেয়ার করতে পারেন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!