ঢাকা , শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মোহাম্মদপুরে তরুণীকে ফ্ল্যাটে ২৫ দিন আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

অনলাইন নিউজ ডেস্ক
  • আপডেটঃ ০৪:২২:৪৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৬১৫ বার পঠিত

ঢাকার মোহাম্মদপুরের একটি বাসায় এক তরুণীকে ২৫ দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শনিবার জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরের মাধ্যমে খবর পেয়ে মোহাম্মদপুর থানা–পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে।

 

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী তরুণী চারজনকে আসামি করে মামলা করেছেন। পুলিশ বলছে, মোহাম্মদপুর এলাকার চারতলার একটি ফ্ল্যাটে টানা ২৫ দিন আটক রেখে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করা হয়। তাঁর ভিডিও ধারণ করা হয় বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে।

 

পুলিশ সূত্র জানায়, মামলায় যে চারজনকে আসামি করা হয়েছে, তারা হলেন সান (২৬), হিমেল (২৭), রকি (২৯) ও সালমা ওরফে ঝুমুর (২৮)। সালমা এক প্রবাসীর স্ত্রী।

 

মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাহফুজুল হক ভূঞা বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। পুলিশ আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছে।

 

এদিকে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনারের কার্যালয় থেকে রোববার দিবাগত রাতে জানানো হয়েছে, আসামি গ্রেফতার হয়েছে। সোমবার সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

 

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, আসামি সালমার চতুর্থ তলার ফ্ল্যাটে গত ৫ মার্চ থেকে ওই তরুণীকে আটকে রাখা হয়েছিল। ধর্ষণেও সালমা সহায়তা করেন।

এজাহারে বলা হয়, বাবা–মায়ের মধ্যে বিচ্ছেদ এবং পরে তারা অন্যত্র বিয়ে করায় ওই তরুণী তার বড় বোনের বাসায় থাকছিলেন। ভগ্নিপতির মাধ্যমে এক যুবকের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। পরে ওই যুবকের মাধ্যমে সালমার সঙ্গে পরিচয় হয়। একপর্যায়ে বোনের বাসা ছেড়ে তার (সালমা) সঙ্গে ভাড়া ফ্ল্যাটে ওঠেন। পরে সালমার মাধ্যমে সানের সঙ্গে পরিচয় এবং প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ওই বাসায় গত ৩ ফেব্রুয়ারি সান প্রথম ধর্ষণ করেন বলে এজাহারে অভিযোগ করা হয়।

 

এজাহারে আরও বলা হয়, পরে বিয়ের জন্য চাপ দিলে সান যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। পরে ৫ মার্চ দুপুরে হিমেল ও রকিকে নিয়ে আসেন। তারা তার (তরুণীর) হাত–পা ও চোখ বেঁধে ফেলেন, মুখে স্কচটেপ লাগিয়ে দেন। পরে হিমেল তাকে ধর্ষণ করেন।

 

৩০ মার্চ রাতে বাসায় কেউ না থাকার সুযোগে জানালা দিয়ে চিৎকার করে স্থানীয় এক ব্যক্তির দৃষ্টি আকর্ষণ করেন নির্যাতনের শিকার ওই তরুণী। পরে ওই ব্যক্তি ৯৯৯ নম্বরে ফোন দিলে পুলিশ এগিয়ে আসে।

অর্থআদালতডটকম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া অন্য কোথাও ব্যবহার করা যাবে না।

error: Content is protected !!

মোহাম্মদপুরে তরুণীকে ফ্ল্যাটে ২৫ দিন আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

আপডেটঃ ০৪:২২:৪৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪

ঢাকার মোহাম্মদপুরের একটি বাসায় এক তরুণীকে ২৫ দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শনিবার জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরের মাধ্যমে খবর পেয়ে মোহাম্মদপুর থানা–পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে।

 

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী তরুণী চারজনকে আসামি করে মামলা করেছেন। পুলিশ বলছে, মোহাম্মদপুর এলাকার চারতলার একটি ফ্ল্যাটে টানা ২৫ দিন আটক রেখে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করা হয়। তাঁর ভিডিও ধারণ করা হয় বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে।

 

পুলিশ সূত্র জানায়, মামলায় যে চারজনকে আসামি করা হয়েছে, তারা হলেন সান (২৬), হিমেল (২৭), রকি (২৯) ও সালমা ওরফে ঝুমুর (২৮)। সালমা এক প্রবাসীর স্ত্রী।

 

মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাহফুজুল হক ভূঞা বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। পুলিশ আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছে।

 

এদিকে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনারের কার্যালয় থেকে রোববার দিবাগত রাতে জানানো হয়েছে, আসামি গ্রেফতার হয়েছে। সোমবার সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

 

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, আসামি সালমার চতুর্থ তলার ফ্ল্যাটে গত ৫ মার্চ থেকে ওই তরুণীকে আটকে রাখা হয়েছিল। ধর্ষণেও সালমা সহায়তা করেন।

এজাহারে বলা হয়, বাবা–মায়ের মধ্যে বিচ্ছেদ এবং পরে তারা অন্যত্র বিয়ে করায় ওই তরুণী তার বড় বোনের বাসায় থাকছিলেন। ভগ্নিপতির মাধ্যমে এক যুবকের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। পরে ওই যুবকের মাধ্যমে সালমার সঙ্গে পরিচয় হয়। একপর্যায়ে বোনের বাসা ছেড়ে তার (সালমা) সঙ্গে ভাড়া ফ্ল্যাটে ওঠেন। পরে সালমার মাধ্যমে সানের সঙ্গে পরিচয় এবং প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ওই বাসায় গত ৩ ফেব্রুয়ারি সান প্রথম ধর্ষণ করেন বলে এজাহারে অভিযোগ করা হয়।

 

এজাহারে আরও বলা হয়, পরে বিয়ের জন্য চাপ দিলে সান যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। পরে ৫ মার্চ দুপুরে হিমেল ও রকিকে নিয়ে আসেন। তারা তার (তরুণীর) হাত–পা ও চোখ বেঁধে ফেলেন, মুখে স্কচটেপ লাগিয়ে দেন। পরে হিমেল তাকে ধর্ষণ করেন।

 

৩০ মার্চ রাতে বাসায় কেউ না থাকার সুযোগে জানালা দিয়ে চিৎকার করে স্থানীয় এক ব্যক্তির দৃষ্টি আকর্ষণ করেন নির্যাতনের শিকার ওই তরুণী। পরে ওই ব্যক্তি ৯৯৯ নম্বরে ফোন দিলে পুলিশ এগিয়ে আসে।